Uncategorized

“সালাম”

সংক্ষিপ্তভাবে কেবল “সালাম” শব্দ দ্বারা সালাম দেওয়ার বিধান
▬▬▬❖❖❖▬▬▬▫
প্রশ্ন: এক মানুষ অন্য মানুষকে সাধারণত: বলে থাকে যে, অমুকের সাথে দেখা হলে আমার সালাম দিয়েন। বা ফোনে ও বলে থাকে, “অমুক কে আমার সালাম দিয়েন।” এভাবে কি সালাম দেয়া ঠিক? কেননা এভাবে তো “আসসালামু আলাইকুম…” এভাবে পুরো টা বলা হয় না। জাস্ট ‘সালাম’ বলা হয়?

উত্তর:
এভাবে সালাম পাঠানো জায়েয আছে । যেমন, হাদীসে বর্ণিত হয়েছে,
◼ জিবরাঈল আলাইহিস সালাতু সালাম নবী সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম কে উদ্দেশ্য করে বলেন:
فاقرأ عليها السلام من ربها ومني
“হে নবী, আপনি খাদিজাকে তার রবের পক্ষ থেকে এবং আমার পক্ষ থেকে সালাম দিন।”
(সহীহুল বুখারী, মানকিবুল আনসার, খদিজা র. এর সাথে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর বিবাহ ও তাঁর মর্যাদা)

মহান আল্লাহ তায়ালা এবং জিবরাঈলের পক্ষ থেকে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মাধ্যমে খাদিজা রা. এর পাশাপাশি আয়েশা রা.কেও এভাবে সালাম দেয়ার কথা হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। যেমন, নিম্নোক্ত হাদীসটি।
◼রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন:
يا عائشة هذا جبريل يقرأ عليك السلام
“হে আয়েশা, এই যে জিবারাঈল তোমাকে সালাম জানাচ্ছেন।” (সহীহ বুখারী ও মুসলিম)
সুতরাং ইনশাআল্লাহ এভাবে একজনের পক্ষ থেকে আরেকজনের নিকট সালাম পাঠাতে কোন সমস্যা নেই ইনশাআল্লাহ।

💠 উপস্থিত ব্যক্তিকে সালাম দেয়ার ক্ষেত্রে বা চিঠিপত্র লিখা বা চ্যাটিং এর সময় পরিপূর্ণভাবে সালাম দেয়া উত্তম। অর্থাৎ এভাবে বলা: “আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ” (আপনার প্রতি রহমত, শান্তি ও রবকত অবতীর্ণ হোক।)

তবে কোনো কারণে মাঝে-মধ্যে সংক্ষেপে সালাম বললেও কোনো আপত্তি নাই। যেমন: আল্লাহ তাআলা বলেন,
إِذْ دَخَلُوا عَلَيْهِ فَقَالُوا سَلَامًا ۖ قَالَ سَلَامٌ قَوْمٌ مُّنكَرُونَ
“যখন তারা তাঁর কাছে উপস্থিত হয়ে বললঃ সালাম। তখন সে বললঃ সালাম। এরা তো অপরিচিত লোক।” (সূরা যারিয়াত: ২৫)
তবে পরিপূর্ণভাবে সালাম দেয়া অধিক উত্তম ও অধিক সওয়াবের কাজ।
আল্লাহু আলাম।
▬▬▬❖❖❖▬▬▬▫
উত্তর প্রদানে:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলিল
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, KSA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *